ট্যাগগুলি » সেক্স

দেহ ব্যবসা বৈধ ১৪ দেশে

দেহ ব্যবসা। ‘আদিম রিপু’ নিয়ে এই পেশা পৃথিবীর প্রাচীনতম পেশাগুলির অন্যতম। অনেকের মতে, দেহ ব্যবসাই প্রাচীনতম। কিন্তু এত দীর্ঘ সময় পেরিয়েও সমাজের সবচেয়ে উপেক্ষিত শ্রেণির এই পেশার নাম- দেহ ব্যবসা! 7 more words

অ্যাডাল্ট থিংকস

ওহ মাই ফাক

ইউ হ্যাভ অ্যা সেক্স!

ডোন্ট ডু ইট ইমেডিয়েটলি!

বিকজ, এভরি ফাক আর ডেঞ্জার বেয়ারিং!

অাষাঢ়ে ডেকো না তাঁরে ঘন বর্ষায় ; যেন বদনাম না হয় ঘন বৃষ্টিতে একলা ঘরে।

কবিতা

মুহাম্মদ নিজ স্বার্থে কোরানের আয়াত ডাউনলোড করতেন

সম্পূর্ণ কোরান ২৩ বছরেরও বেশি সময় ধরে নাযিল হয়েছিলো। একটিবার কি মনে প্রশ্ন জেগেছে যে, কোরান নাযিল হতে ২৩ বছর লাগলো কেনো? আল্লাহ মানবজাতির জীবনবিধানটি একবারে একসাথে না পাঠিয়ে ২৩ বছর ধরে একটি দুটি করে আয়াত কেন নাযিল করলেন?

কোরান

বিয়ে বাঁচাতে যখন অচেনা লোকের সাথে রাত কাটাতে হয়...

গতকাল রাতে নিউজ ফিড চেক করতে করতে কোন একটা রিপোর্ট পড়ার জন্যে ঢুকলাম বিবিসি বাংলার ওয়েবসাইটে। হঠাৎ করেই চোখ আটকে গেলো সাইডবারে থাকা অন্য একটা লেখার

কোরান

ব্রিটিশ শিশুদের মধ্যে বেড়ে চলেছে সেক্সটিং

লন্ডন, ১১ জুলাই- যুক্তরাজ্যের হাজারো শিশু নিজেদের মধ্যে অশ্লীল ছবি ও বার্তা আদান-প্রদানে (সেক্সটিং) জড়িত বলে সম্প্রতি এক তদন্তে বেরিয়ে এসেছে। এদের মধ্যে পাঁচ বছর বয়সী একটি বালকও রয়েছে।

গত তিন বছরে ইংল্যান্ড এবং ওয়ালসে ১২ বছরের কম বয়সী ৪০০ শিশুকে এ বিষয়ে জেরা করেছে ব্রিটিশ পুলিশ। বিভিন্ন পরিসংখ্যানের বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, শিশুরা নিজেদের অশ্লীল ছবি তুলে অন্যকে তা পাঠায়।

ব্রিটিশ আইন অনুসারে, ১৮ বছরের কম বয়সী কোনও ব্যক্তির জন্য এ ধরনের ছবি ধারণ কিংবা প্রেরণ- উভয়ই অবৈধ। এমনকি নিজের ছবিও।

বিবিসির প্রতিবেদনে জানানো হয়, ডুরহাম কাউন্টির পাঁচ বছরের বালকটি স্থানীয় পুলিশের সঙ্গে কথা বলেছে। পুলিশ যাদের বিষয়ে তদন্ত করেছে, তাদের মধ্যে সবচেয়ে কম বয়সী শিশু এই বালক।

পুলিশ কর্মকর্তা স্টিভ থুবর্ন জানান, শিশুদের নিরাপত্তার স্বার্থেই তারা সেক্সটিংয়ের ঘটনা তদন্ত করেন। জাতীয় অপরাধ সূচক অনুসারেই তাদের ঘটনাগুলো রেকর্ড করা হয়।

তিনি বলেন, ‘আমরা আনুপাতিকহারে ঘটনাগুলো তদন্ত করি এবং শিশুদের অপরাধী সাব্যস্ত করি না। স্কুলশিক্ষক এবং তরুণদের পরামর্শ ও নির্দেশনা দেয়ার জন্য আমরা অন্য সংস্থাগুলোর সঙ্গেও কাজ করছি। যেসব শিশু কোনও বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তির সঙ্গে এ নিয়ে কথা বলতে সমস্যাবোধ করে, তাদের ১০১ নম্বরে কল করারও অনুরোধ করছি।’

২০১৩ সাল থেকে এ পর্যন্ত সেক্সটিংয়ে জড়িত ৪ হাজারের বেশি শিশুকে শনাক্ত করেছে ব্রিটিশ পুলিশ। এদের বেশিরভাগের বয়সই ১৩ থেকে ১৪ বছরের মধ্যে।

ব্রিটিশ শিশুদের মধ্যে বেড়ে চলেছে সেক্সটিং

লন্ডন, ১১ জুলাই- যুক্তরাজ্যের হাজারো শিশু নিজেদের মধ্যে অশ্লীল ছবি ও বার্তা আদান-প্রদানে (সেক্সটিং) জড়িত বলে সম্প্রতি এক তদন্তে বেরিয়ে এসেছে। এদের মধ্যে পাঁচ বছর বয়সী একটি বালকও রয়েছে।

গত তিন বছরে ইংল্যান্ড এবং ওয়ালসে ১২ বছরের কম বয়সী ৪০০ শিশুকে এ বিষয়ে জেরা করেছে ব্রিটিশ পুলিশ। বিভিন্ন পরিসংখ্যানের বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, শিশুরা নিজেদের অশ্লীল ছবি তুলে অন্যকে তা পাঠায়।

ব্রিটিশ আইন অনুসারে, ১৮ বছরের কম বয়সী কোনও ব্যক্তির জন্য এ ধরনের ছবি ধারণ কিংবা প্রেরণ- উভয়ই অবৈধ। এমনকি নিজের ছবিও।

বিবিসির প্রতিবেদনে জানানো হয়, ডুরহাম কাউন্টির পাঁচ বছরের বালকটি স্থানীয় পুলিশের সঙ্গে কথা বলেছে। পুলিশ যাদের বিষয়ে তদন্ত করেছে, তাদের মধ্যে সবচেয়ে কম বয়সী শিশু এই বালক।

পুলিশ কর্মকর্তা স্টিভ থুবর্ন জানান, শিশুদের নিরাপত্তার স্বার্থেই তারা সেক্সটিংয়ের ঘটনা তদন্ত করেন। জাতীয় অপরাধ সূচক অনুসারেই তাদের ঘটনাগুলো রেকর্ড করা হয়।

তিনি বলেন, ‘আমরা আনুপাতিকহারে ঘটনাগুলো তদন্ত করি এবং শিশুদের অপরাধী সাব্যস্ত করি না। স্কুলশিক্ষক এবং তরুণদের পরামর্শ ও নির্দেশনা দেয়ার জন্য আমরা অন্য সংস্থাগুলোর সঙ্গেও কাজ করছি। যেসব শিশু কোনও বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তির সঙ্গে এ নিয়ে কথা বলতে সমস্যাবোধ করে, তাদের ১০১ নম্বরে কল করারও অনুরোধ করছি।’

২০১৩ সাল থেকে এ পর্যন্ত সেক্সটিংয়ে জড়িত ৪ হাজারের বেশি শিশুকে শনাক্ত করেছে ব্রিটিশ পুলিশ। এদের বেশিরভাগের বয়সই ১৩ থেকে ১৪ বছরের মধ্যে।

'আর ক টা দিনই তো' একটা অভিশাপ | জাহিদ রাজ রনি

দূরে থাকলে ভালোবাসা বাড়ে – এইরুপ প্রচলিত কথাটার মধ্যে কিছু ঘাপলা আছে বলে মনে হয় আমার। দূরে থাকলে ভালোবাসা বাড়বে যদি সম্পর্কে নিশ্চয়তা থাকে; অর্থাৎ মানুষটা বউ কিংবা একান্ত বাধ্যাগত প্রেমিকা হলে। সেক্ষেত্রেও ভালোবাসা খুব একটা বাড়ে বলে মনে হয়না, মানুষটারে কাছে পাবার আগ্রহই বাড়ে কেবল।

চোখের আড়াল হলেই ভালোবাসা কমে, রোজ একটু একটু করে কমে। অতি সুন্দরী প্রেমিকাও দশদিন চোখের সামনে না থাকলে এগারো দিনের দিন তুলনামূলক অসুন্দর, কিন্তু চোখে চোখে থাকে এমন কাউকে ভালো লাগতে শুরু করবে। এটাই হয়, এটাই নিয়ম।

দূরে থাকলে ভালোবাসা বাড়ে, এটা কেবল শান্তনা। বিষয়টা অনেকটা মোবাইল চার্জের মতো। চার্জার আনপ্লাগ করলে চার্জ কমতে থাকে আর প্লাগইন করলে কমার তুলনায় দ্রুততম সময়ে চার্জ হয়ে যায়। প্রেমিকা/প্রেমিকা দূরে থাকলে ভালোবাসা কমতে থাকে এবং অনেকদিন পর দেখা হলে ভালোবাসা আবার একটু গতী পায়!

কাছে থাকাতে বিশেষ সমস্যা না হলে কাছেই থাকুন। ছোটখাটো ত্যাগ করে হলেও কাছে থাকার চেষ্টা করুন। সময় চলে যাবে, অপেক্ষা করে মরে যাবেন- কাছে পাবার সময় হয়ে আসলে অবেলায় মানুষটা টুপ করে অন্যের হয়ে যাবে। কিচ্ছু কি করার আছে…?

জাহিদ রাজ রনি