ট্যাগসমূহ » রাজনীতি

শঙ্কার বার্তা নিয়েও নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি

মাহমুদ আজহার: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন দরজায় কড়া নাড়ছে। শঙ্কার বার্তা নিয়েও নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে দশম জাতীয় সংসদ বর্জন করা দল বিএনপি। অবশ্য দলটিতে নির্বাচনে যাওয়া না যাওয়ার বিতর্কও এখন তুঙ্গে। গেল নির্বাচন বর্জন করার পক্ষে থাকা একটি অংশ এখনো আগের অবস্থানেই রয়েছে। ‘সহায়ক সরকার’, ‘সুষ্ঠু নির্বাচনের অনুকূল পরিবেশ’ আর ‘নো খালেদা নো ইলেকশন’— এমন দাবি নিয়েই তারা মাঠে সক্রিয়। এসব শর্ত পূরণ না করলে তারা এখনই একাদশ জাতীয় নির্বাচন বর্জনের পক্ষে হুমকিও দিচ্ছেন। দলের প্রধান বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকেও নির্বাচন বর্জনের পক্ষে নানা যুক্তি তুলে ধরছেন। তবে দলের বড় অংশই মনে করছে, নির্বাচন বর্জন কোনো সমাধান নয়। নির্বাচনে গিয়েই পরিবর্তিত পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হবে। সরকারের কাছ থেকে দাবি আদায়ে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালাতে হবে। একই ভাবে যে কোনো পরিস্থিতিতেই নির্বাচনে যেতে হবে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নির্বাচনে প্রভাব বিস্তার করবে— এমনটা মাথায় রেখেই দলকে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত করতে হবে। কোনো কারণে একাদশ নির্বাচন বর্জন করলে দলের ভবিষ্যৎ হুমকির মুখে পড়তে পারে বলেও শঙ্কা এই নেতাদের। আর নির্বাচন বর্জন করলে পরিণতি কী হয়, তাও বিএনপি এখন বুঝতে পারছে। তবে এ অংশের নেতাদের সরকারের ‘দালাল’ বলে আখ্যা দিচ্ছেন নির্বাচন বয়কটের হুমকি দেওয়া নেতারা। আবার তাদেরও স্পষ্টভাবেই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের ‘দালাল’ বলে আখ্যা দিচ্ছেন নির্বাচনে যেতে ইচ্ছুক নেতারা।

রাজনীতি

আজ জিয়াউর রহমানের ৮২তম জন্মবার্ষিকী

আজ বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৮২ তম জন্মবার্ষিকী। ১৯৩৬ সালের এই দিনে বগুড়ার গাবতলী উপজেলার বাগবাড়ী গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি।

জিয়াউর রহমানের পিতা রসায়নবিদ মনসুর রহমান ও মা জাহানারা খাতুন রানী। পাঁচ ভাইয়ের মধ্যে দ্বিতীয় জিয়াউর রহমানের ডাক নাম কমল। মাত্র ১৭ বছর বয়সে সেনাবাহিনীতে যোগ দেন এই বীর মুক্তিযোদ্ধা। বগুড়া ও কলকাতায় শৈশব ও কৈশোর অতিবাহিত করার পর জিয়াউর রহমান বাবার সাথে তার কর্মস্থল করাচিতে যান। শিক্ষাজীবন শেষে ১৯৫৫ সালে তিনি পাকিস্তান মিলিটারি অ্যাকাডেমিতে অফিসার হিসেবে কমিশন লাভ করেন।

১৯৭১ সালে চট্টগ্রামের কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র পাঠ করেন জিয়াউর রহমান। মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য বীর উত্তম খেতাবে ভূষিত হন তিনি।

দলের প্রতিষ্ঠার জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠন নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। সারাদেশে দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে। আজ সকাল ১০ টায় শেরেবাংলা নগরে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সমাধিতে ফাতিহা পাঠ ও পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এছাড়া আলোচনা সভা আলোকচিত্র প্রদর্শনী, পোস্টার, লিফলেট ও বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

তার জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আজ বিকেল ৩ টায় বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে কাকরাইল মোড় হয়ে মালিবাড় পর্যন্ত বর্ণাঢ্য র‌্যালি আয়োজন করবে শ্রমিক দল। এছাড়া গতকাল বৃহস্পতিবার জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বিএনপির উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

রাজনীতি

চিকিৎসার জন্য আইভিকে আজ বিকেলে নারায়ণগঞ্জ থেকে অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকায় আনা হয়।

নারায়ণগঞ্জের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীকে রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালের আইসিসিইউতে ভর্তি করা হয়েছে। এর আগে চিকিৎসার জন্য তাকে নারায়ণগঞ্জ থেকে অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকায় আনা হয়।

মঙ্গলবারের সংঘর্ষে আহত আইভী বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে বেশি অসুস্থ অনুভব করেন। এরপর কয়েকবার বমি করলে তাকে স্যালাইন দেয়া হচ্ছিলো। তবুও শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে চিকিৎসকরা তাকে ঢাকায় নিয়ে আসার পরামর্শ দেন। এরপর বিকেল ৪টায় মেয়র আইভীকে নিয়ে একটি অ্যাম্বুলেন্স ঢাকার দিকে রওনা হয়।

এর আগে সংঘর্ষের বিষয়ে বুধবার বিকেলে সংবাদ সম্মেলন করে সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছিলেন, হত্যার উদ্দেশ্যেই তার ওপর হামলা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, আধাঘণ্টা রাস্তায় পড়ে ছিলাম, তখন পুলিশ আসতে পারতো। ত্বকী হত্যার ঘটনায় সবচেয়ে বেশি আন্দোলনে তো আমিই ছিলাম। তখন তো পুলিশ চলে আসতো মাঝখানে। একতরফা এভাবে কেউ মার খাইনি।

‘‘আমার দেড়শ’ থেকে দুইশ’ কর্মীকে আহত করলো। আমার কর্মীদের সবার মাথা ফাঁটা। আমার ভাই আহত, আমি হাঁটতে পারি না। প্রশাসন আমাকে ইনফর্ম করতে পারতো। বলতে পারতো, ওখানে এত বড় ঘটনা ঘটতে পারে, আপনি যাবেন না ওখানে। আমরা যারা মানুষের জন্য কাজ করি তারা জন্মমৃত্যু নিয়েই কাজ করি।’’

নারায়ণগঞ্জের ফুটপাতে হকার বসানোকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার এমপি শামীম ওসমান ও মেয়র আইভী সমর্থকদের সংঘর্ষে মেয়র আইভী, সাংবাদিকসহ শতাধিক আহত হয়। প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়াসহ দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় পুরো এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ দুই শতাধিক শর্ট গানের ফাঁকা গুলি ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। মঙ্গলবার বিকেলে নগরীর চাষাঢ়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। সেসময় অস্ত্র উঁচিয়ে তেড়ে গেলে গণধোলাইয়ের শিকার হন শামীম ওসমানের সমর্থক নিয়াজুল।

রাজনীতি

ঝুলে গেল ঢাকার ভোট : হাইকোর্টে ৩ মাসের জন্য স্থগিতাদেশ, প্রার্থীরা হতাশ

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে উপনির্বাচন ও স¤প্রসারিত অংশের কাউন্সিলর নির্বাচন তিন মাসের জন্য স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে ওই নির্বাচনের জন্য নির্বাচন কমিশনের (ইসি) ঘোষিত তফসিল কেন ‘আইনগত কর্তৃত্ব বহির্ভূত’ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন আদালত। আদালতে স্থগিতাদেশের পর ঢাকা উত্তরে নির্বাচনী কার্যক্রম স্থগিত ঘোষণা করেছে ইসি। এদিকে নির্বাচন স্থগিত হওয়ায় হতাশ হয়েছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। তবে আদালতের আদেশের প্রতি আস্থা রাখছেন আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট প্রার্থী আতিকুল ইসলাম। আর বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের প্রার্থী তাবিথ আওয়াল নির্বাচন কমিশনকে আইনি প্রক্রিয়ায় ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

দুটি রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি করে গতকাল বুধবার সিটি নির্বাচনের তফসিল তিন মাসের জন্য স্থগিত করে বিচারপতি নাঈমা হায়দার ও বিচারপতি জাফর আহমেদের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। এর আগে ডিএনসিসি মেয়রের শূন্য পদে উপনির্বাচনের ঘোষিত তফসিল স্থগিত চেয়ে গত মঙ্গলবার হাইকোর্টে পৃথক দুটি রিট দায়ের করেন রাজধানী উত্তরের বেরাইদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম ও ভাটারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান।

হাইকোর্টে জাহাঙ্গীর আলমের করা রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী কামরুল হক সিদ্দিকী ও মো. জাহাঙ্গীর হোসাইন সেলিম। আর আতাউর রহমানের করা রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মোস্তাফিজুর রহমান খান। তার সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী আহসান হাবিব ভূঁইয়া। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোখলেসুর রহমান।

আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট প্রার্থী আতিকুল ইসলাম ভোরের কাগজকে বলেন, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দলের কাছে আমি মনোনয়ন চেয়েছি। দল আমাকে মনোনয়ন দিয়েছে। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা যে সিদ্ধান্ত দেবেন আমি সে অনুযায়ী চলব। আমি আদালতের সিদ্ধান্তের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। আদালতের আদেশে নির্বাচন স্থগিত হওয়ায় এখন প্রচারণার কৌশল পরিবর্তন হবে। তবে আমি নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত। অন্যদিকে, বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের প্রার্থী তাবিথ আওয়াল বলেন, এই মুহ‚র্তে আমি নির্বাচন কমিশনকে আহ্বান জানাব আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এ নির্বাচনের ব্যবস্থা নিশ্চিত করার। নির্বাচন কমিশনের কর্মকাণ্ড দেখে পরবর্তী প্রতিক্রিয়া জানাবেন বলেও জানান তিনি

আনিসুল হকের মৃত্যুতে শূন্য হওয়া ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে উপনির্বাচন এবং দুই সিটিতে নতুন যুক্ত হওয়া ৩৬টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত আসনের কউন্সিলর নির্বাচনের জন্য গত ৯ জানুয়ারি তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। ওই তফসিলের বৈধতা চ্যালঞ্জ করে এবং তফসিলের কার্যকারিতার ওপর স্থগিতাদেশ চেয়ে গত মঙ্গলবার হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন ভাটারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান ও বেরাইদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম। তাদের মধ্যে আতাউর ভাটারা থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক, আর জাহাঙ্গীর বাড্ডা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। তাদের দুই ইউনিয়নকে সিটি করপোরেশনের স¤প্রসারণ ওয়ার্ড হিসেবে যুক্ত করে নেয়া হয়েছে।

রিটকারী পক্ষের শুনানিতে আইনজীবীরা বলেন, ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ১৮ জানুয়ারি মধ্যে মনোনয়নপত্র জমা দিতে বলা হলেও এখন পর্যন্ত চূড়ান্ত ভোটার তালিকাই প্রকাশ করা হয়নি। আহসান হাবিব ভূঁইয়া যুক্তি দেন, এখন যিনি প্রার্থী হবেন, তিনি কিন্তু জানেন না ভোটার কিনা। তাছাড়া মনোনয়নপত্রে ৩০০ ভোটারের স্বাক্ষর থাকতে হবে। ভোটার তালিকা প্রকাশ না হলে সেটা কীভাবে সম্ভব?

স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন, ২০০৯ এর ৫ (৩) উপধারায় বলা হয়েছে, মেয়রের পদসহ করপোরেশনের শতকরা পঁচাত্তর ভাগ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে এবং নির্বাচিত কাউন্সিলর নাম সরকারি গেজেটে প্রকাশিত হলে, করপোরেশন এই আইনের অন্যান্য বিধান সাপেক্ষে, যথাযথভাবে গঠিত হয়েছে বলে গণ্য হবে। আহসান হাবিব ভূঁইয়া বলেন, উত্তর সিটি করপোরেশনে নতুন যুক্ত হওয়া ১৮টির ওয়ার্ড ধরলে কাউন্সিলরের সংখ্যা পঁচাত্তর শতাংশ হয় না। কারণ নতুন ১৮টিতে তো নির্বাচনই হয়নি। সে হিসাবে মেয়র পদই তো গঠিত হচ্ছে না। তাছাড়া স¤প্রসারিত ৩৬টি ওয়ার্ডে যারা কাউন্সিলর হবেন, তারা পুরো পাঁচ বছর পাবেন না- কেন সে বিষয়েও প্রশ্ন তোলা হয় ওই রিট আবেদনে।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ৩০ নভেম্বর মেয়র আনিসুল হকের আকস্মিক মৃত্যুর পর ডিএনসিসির মেয়র পদে উপনির্বাচনের জন্য গত ৯ জানুয়ারি তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। একই সঙ্গে ওই দিন ডিএনসিসির নতুন সংযোজিত ১৮টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে নির্বাচনেরও তফসিল ঘোষণা করা হয়। একই সময়ে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের ৬টি করে ১২টি সংরক্ষিত মহিলা আসনের নির্বাচন করার কথা বলা হয়। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি ভোটগ্রহণ হওয়ার কথা।

ডিএনসিসির নির্বাচনী কার্যক্রম স্থগিত ঘোষণা ইসির : ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) সব নির্বাচনী কার্যক্রম স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। হাইকোর্ট থেকে ৩ মাসের স্থগিত আদেশ দেয়ার পর ইসি এ সিদ্ধান্ত নিল। আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে গতকাল বুধবার ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, গণমাধ্যমের মাধ্যমে জানতে পেরেছি হাইকোর্ট ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের নির্বাচন স্থগিত করেছেন। রায়ের কপি পেলে আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

আইনি কোনো ঘাটতি ছিল কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আইনি কোনো কমতি ছিল বলে আমাদের মনে হয়নি। সব প্রস্তুতি নিয়েই আমরা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছিলাম।

আপিল করবেন কিনা জানতে চাইলে ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, আদালত থেকে লিখিত আদেশ পেয়ে কমিশন আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলে পরবর্তী কার্যক্রম নির্ধারণ করবে।

যারা ইতোমধ্যে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন তাদের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ পর্যন্ত মেয়র পদে ১৯, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪১২ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদের জন্য ৭১ জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। মেয়র পদের কেউ এখনও মনোনয়ন জমা দেননি। মাত্র দুজন সাধারণ কাউন্সিলর মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। পরবর্তীতে তফসিল এটাই থাকবে শুধু নির্বাচনের তারিখটি পেছাবে।

হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, যারা মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন, তাদের নতুন করে আর মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করতে হবে না।

তাহলে এখন কি কারোর মনোনয়ন জমা নেয়া বা দেয়া হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, যেহেতু গণমাধ্যমের মাধ্যমে আমরা জানতে পেরেছি হাইকোর্ট নির্বাচন ৩ মাসের জন্য স্থগিত করেছেন। তাই এ কার্যক্রম বন্ধ রাখা হয়েছে।

রাজনীতি

প্রধানমন্ত্রী ফরিদপুরকে ডিভিশনাল হেডকোয়ার্টার করার ঘোষণা দিয়েছেন

ফরিদপুর, 13 ডিসেম্বর, Newsonlinebd24 : স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দাকর মোশাররফ হোসেন বলেছেন, একনেকের গত সভায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ফরিদপুরকে ডিভিশনাল হেডকোয়ার্টার করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন। অনতিবিলম্বে এ ঘোষণা বাস্তবায়িত হবে। আটটি ডিভিশনাল হেড কোয়ার্টারের মধ্যে ফরিদপুর হবে সবার সেরা।

গতকাল বৃহস্পতিবার ফরিদপুরে এক যুব সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

তিনি বলেন, ফরিদপুর সিটি করপোরেশন হচ্ছে। এর জন্য ফরিদপুর পৌরসভার সীমানা বাড়িয়ে আগের চেয়ে চারগুণ বৃদ্ধি করা হয়েছে।

সমবায়মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়ন হবে না যদি শেখ হাসিনার সরকার বার বার ক্ষমতায় না আসে। আগে আমাদের ধারণা হয়েছিল পর পর তিনবার এক নেতা ও এক দলকে এ দেশের জনগণ মেনে নেবে না। কিন্তু আজকের এ বিশাল সমাবেশ দেখে আমার এ প্রত্যয় হয়েছে তিনবার কেন শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগকে পর পর ছয়বার এ দেশের জনগণ ক্ষমতায় বসাবে।

তিনি বলেন, এখন আমাদের সামনে চ্যালেঞ্জ হচ্ছে ২০১৮ সালের শেষের দিকে আমরা আবার জাতীয় নির্বাচনের সম্মুখীন হব। এ সময়ে আমাদের চ্যালেঞ্জ হচ্ছে জনগণের এ সমর্থন আমাদের ধরে রাখতে হবে।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, শেখ হাসিনা যখন ২০২১ ও ২০৪১ সালে যথাক্রমে মধ্যম আয়ের দেশ ও উন্নত দেশে পরিণত করার রূপকল্প ঘোষণা করেছিল তখন এ দেশের বিরোধীর দলের নেতা নেত্রীরা হাসি ঠাট্টা করেছিল। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে ৮ বছর আগে যেখনে মাথাপিছু জাতীয় আয় ছিল ৫০০ ডলার এখন তা তিনগুণের বেশি বেড়ে ১৬১০ ডলার হয়েছে। এ থেকে প্রমাণিত হয় কতটা দূরদৃষ্টি জ্ঞান ধারণ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ২০০৮ সালে আমাকে ফরিদপুর সদর আসন থেকে নির্বাচিত করে ফরিদপুরবাসী উন্নয়নের রূপরেখা দেখতে পেয়েছে। আগামীতে ফরিদপুরে একটি বিশ্ববিদ্যালয় করার জন্য ৩০ একর জমি দেখা হয়েছে। আগামী নির্বাচনে আমাকে নির্বাচিত করলে ফরিদপুরে বিশ্ববিদ্যালয় হবে।

‘আজ থেকে নির্বাচনী প্রচারের শুরু করে দিলাম’- ঘোষণা দিয়ে খন্দকার মোশাররফ বলেন, শেখ হাসিনার দলকে না জেতানো পর্যন্ত আমরা মাঠ ছাড়ব না। নির্বাচনের মাত্র এক বছর বাকি আছে। এ সময় মিছিল করতে করতে পার হয়ে যাবে।

এ সময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. লোকমান হোসেন মৃধা, শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি নাজমুল ইসলাম খন্দকার লেভী, সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী বরকত ইবনে সালাম, প্রেসক্লাবের সভাপতি ইমতিয়াজ হাসান রুবেল।

জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক এএইচএম ফোয়াদের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে ক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীহের সভাপতি সুবল চন্দ্র সাহা, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান খন্দকার মোহতেসাম হোসেন ওরফে বাবর, জেলা যুব মহিলা লীগের আহ্বায়ক ফরিদা ইসলাম, সদর যুবলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান, শহর যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি চৌধুরী মো. হাসান, সদর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহ মো. এমার হক ও শহর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আসিবুর রহমান ওরফে ফারহান।

News

জয়পুরহাট আওয়ামী তিন নেতার বহিস্কারে ক্ষুব্ধ ও ঝাড়ু মিছিল

১৩ জানুয়ারী জয়পুরহাট জেলা আওয়ামীলীগের অফিসে সকাল ১০ টায় প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সামসুল আলম দুদুর সভাপতিত্বে ও এস এম সোলাইমান আলীর সাধারণ সম্পাদক এবং জেলা আওয়ামীলীগে একাংশে মতামতের ভিত্তিতে কালাই তিন নেতা আওয়ামীলীগের জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক জনাব মো মিনফুজুর রহমান মিলন,সদস্য পুনুট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস কুদ্দুস ফকির,এবং মাত্রাই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অ,ন,ম,শওকত হাবীব তালুকদার লজিক কে দপ্তর সম্পাদক মো মিজানুর রহমান টিটো সাক্ষরিত একটি জয়পুরহাট জেলা আওয়ামীলীগের দলীয় পাডে দল হতে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে অব্যাহতি প্রদান করেন।

এরই বিরুদ্ধে প্রতিবাদে আজ কালাইয়ে কালাই উপজেলা আওয়ামীলীগ ও পৌর মেয়রের নেতৃত্ব জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সোলাইমান আলী ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সামসুল আলম দুদুর কুশপুত্তলি প্রদশন। ও ঝাড়ু মিছিল শহরের বিভিন্ন রাস্তা প্রদক্ষিণ করেন।