ট্যাগসমূহ » গুগল

এ বছর গুগলে মানুষ সবচেয়ে বেশি যা খুঁজেছে!

 ২০১৭ সাল জুড়ে বিশ্বব্যাপী মানুষ সবচেয়ে বেশি কী কী বিষয় সার্চ করেছে, তার তালিকা প্রকাশ করেছে সার্চ ইঞ্জিন গুগল। আজ মঙ্গলবার এ তালিকা প্রকাশ করা হয়। বিশ্বব্যাপী সাধারণভাবে সার্চ করা বিষয়ের পাশাপাশি বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে এবং বিভিন্ন দেশ থেকে সার্চ করা সেরা দশটি বিষয়ের তালিকাও আছে এতে।

জানা-অজানা তথ্য

মডেলের ফিগার পাল্টে আকর্ষণীয় করলেই জরিমানা

মডেলের শারীরিক সৌন্দর্যকে আরো আকর্ষণীয় করে তুলতে যে প্রায়শই তার ছবির কিছু কিছু জায়গায় কম্পিউটার প্রযুক্তির মাধ্যমে পরিবর্তন ঘটানো হয় সেটা তো আর গোপন কিছু নয়। প্রতিনিয়ত এমন বিজ্ঞাপন আমাদের চোখে পড়ে যেখানে মডেলকে আরো স্লিম, দীর্ঘকায়, সরু ও লম্বা পায়ের অধিকারী, বিভিন্ন অঙ্গ প্রত্যঙ্গের মধ্যে ভারসাম্য তৈরি, আরো মসৃণ ত্বক, বড়ো বড়ো চোখ এবং শরীরের কোথাও কোথাও বাঁক সৃষ্টি করে তাকে আরো আকর্ষণীয় করে তোলার জন্যে বিশেষ কিছু সফটওয়্যারের মাধ্যমে ছবিতে এসব পরিবর্তন ঘটানো হয়।

কিন্তু ফ্রান্সে আগামীকাল রবিবার থেকে বিজ্ঞাপনের ছবিতে ডিজিটাল পদ্ধতিতে এধরনের কোন পরিবর্তন আনা হলে এবিষয়ে ভোক্তাদেরকে সতর্ক করে দিতে হবে, যেমনটা লেখা থাকে সিগারেটের প্যাকেটে। অর্থাৎ বিজ্ঞাপনে মডেলের ফিগার পাল্টানোর ফাঁকি আর চলবে না। নতুন আইনে বলা হয়েছে, এ ধরনের বিজ্ঞাপনে স্পষ্ট করে লিখে দিতে হবে, ‘সম্পাদিত ছবি’ এই বার্তাটি।এই আইন ভঙ্গ করলে তার ৩৭,৫০০ ইউরো কিম্বা বিজ্ঞাপনটি তৈরি করতে যতো খরচ হয়েছে তার ৩০ শতাংশ গুণতে হবে জরিমানা হিসেবে।
কর্মকর্তারা বলছেন, জনস্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করে এধরনের কৃত্রিম ছবি তৈরি বন্ধ করতেই সরকারের এই উদ্যোগ।

তারা বলছেন, এসব ছবি দেখে মানুষ যাতে অতি রুগ্ন হওয়া এবং ওই মডেলের মতো শারীরিক সৌন্দর্যের অধিকারী হতে বেপরোয়া না হয়ে নিজেদের মতো করে স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারে সেই লক্ষ্যে নতুন এই আইনটি কার্যকর হতে যাচ্ছে।

ফরাসী স্বাস্থ্য মন্ত্রী বলেছেন, “শরীরের এসব অবাস্তব ছবি দেখে অল্প বয়সী ছেলেমেয়েদের আত্মবিশ্বাস ও নিজেদের প্রতি সম্মান নষ্ট হয়ে যায়। এর ফলে তাদের শারীরিক ক্ষতিও হতে পারে।”

কারণ ফরাসী তরুণ তরুণীদের কাছে স্লিম হতে পারে তাদের ধ্যান-জ্ঞানের মতো। দেশটিতে প্রচুর মানুষ ক্ষুধা-হীনতার মতো অসুখে ভুগছে এবং ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে ফ্রান্সেই মানুষের বিএমআই (উচ্চতা অনুযায়ী ওজন) সবচেয়ে কম।

ফ্রান্সই যে পৃথিবীর একমাত্র দেশ যারা এই আইনটি প্রয়োগ করতে যাচ্ছে তা নয়, ইসরায়েলেও এধরনের একটি আইন কার্যকর রয়েছে। স্লিম ও মোটা মানুষের প্রতি লোকজনের দৃষ্টিভঙ্গি কেমন তার উপর একটি বই লিখেছেন ফরাসী এক লেখক গ্যাব্রিয়েল দেদিয়ের।

ওই বইতে তিনি লিখেছেন, মোটা হওয়ার কারণে একটি স্কুলে তাকে চাকরি হারাতে হয়েছে। আরেক জায়গায় চাকরির জন্যে ইন্টারভিউ দিতে গিয়ে তাকে শুনতে হয়েছে মোটা মানুষের ঘিলু কম।

কিন্তু প্রশ্ন হলো নতুন আইন কি শরীরের প্রতি ফরাসী মানুষের দৃষ্টিভঙ্গিকে বদলে দিতে পারবে? অনেকেই এটা মানতে রাজি নন। এরকম একজন ব্রিটেনের টম কুইন। স্বাস্থ্য সংক্রান্ত একটি বেসরকারি সংস্থায় কাজ করেন তিনি।

“ফটোশপ করা ছবি খাওয়া দাওয়া সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে বিষয়টা এতো সহজ সরল নয়। তবে অনেকেই আছেন এধরনের সম্পাদিত ছবি দেখার পর যাদের আত্মবিশ্বাস ও প্রেরণা কমে যায়,” বলেন তিনি।-বিবিসি

Featured

‘গুগল অ্যাডসেন্স’-এ যুক্ত হলো বাংলা ভাষা

ঢাকা: এবার গুগলের অ্যাডসেন্সে যুক্ত হয়েছে বাংলা ভাষা। এই জায়ান্ট সার্চ ইঞ্জিনের অ্যাড নেটওয়ার্কটি হলো ‌‘গুগল অ্যাডসেন্স’। মঙ্গলবার (২৬ সেপ্টেম্বর) থেকে গুগল তাদের নেটওয়ার্কে বাংলা ভাষা যুক্ত করেছে। এ তথ্য জানিয়েছে গুগল ব্লগ।

‘গুগল অ্যাডসেন্স’ চালু হয় ২০০৩ সালে। এর শুরু থেকেই বিজ্ঞাপন সুবিধা থেকে পিছিয়ে ছিলো বাংলা ভাষার ওয়েবসাইটগুলো। এই অ্যাডসেন্স চালুর ফলে অনেক লাভবান হবে বাংলাদেশ।

২৬ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত ওই ব্লগপোস্টে গুগল জানায়, আমরা অত্যন্ত আনেন্দের সঙ্গে জানাচ্ছি যে, বাংলাদেশ, ভারতসহ বিশ্বের কোটি কোটি মানুষের বাংলা ভাষাকে অ্যাডসেন্স পরিবারের সঙ্গে যুক্ত করা হলো। গত কয়েক বছরে বাংলা বিষয়বস্তুর প্রতি মানুষের আগ্রহ ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পেয়েছে। সেই বিষয়বস্তু থেকে নগদ অর্থ উপার্জনে প্রকাশকদের একটি মাধ্যম অ্যাডসেন্স। এটি ক্রমবর্ধমান বাংলা ভাষার পাঠকদের কাছে বিজ্ঞাপন সহজে পৌঁছানোর জন্য বিজ্ঞাপনদাতাদের সহায়তা করবে।

বাংলা ভাষার যেকোনো ওয়েবসাইট অ্যাডসেন্সে যুক্ত করার জন্য গুগল অ্যাডসেন্সের অ্যাকাউন্ট করে নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হবে। আবেদনের ৭২ ঘণ্টার মধ্যে গুগল অ্যাডসেন্স কর্তৃপক্ষ বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের অনুমতি দেবে বলেও জানিয়েছে।

জিমেইল অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে সহজেই অ্যাডসেন্সে অ্যাকাউন্ট খোলা যাবে।

বর্তমানে বিশ্বের প্রায় দেড় কোটি ওয়েবসাইটে গুগল অ্যাডসেন্স ব্যবহার করা হচ্ছে। ২০১৫ সালেই প্রতিষ্ঠানটি গুগল অ্যাডসেন্স প্রকাশকদের প্রায় ১০ বিলিয়ন ডলার পেমেন্ট দিয়েছে, যা ক্রমবর্ধমান হারে রকেট গতিতে বাড়ছে। বাংলা ভাষায় অ্যাডসেন্স চালু হওয়ার ফলে এ সংখ্যায় নতুনমাত্রা যুক্ত হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

গুগলের চাকরি ছেড়ে শুধু শিঙাড়া বেচেই কামাই ৫০ লাখ!

ঝুঁকিটা তিনি নিয়েই ফেলেছিলেন। বিশ্বের সেরা আইটি প্রতিষ্ঠানে চাকরি। আর সেই সংস্থাটি যদি হয় ‘গুগল’ তবে তো কোনও কথাই নেই। মুম্বইয়ের নার্সি মনজি থেকে এমবিএ করে বছরখানেক দেশেই চাকরি করেছিলেন তিনি। এর পর ডাক এল গুগল থেকে। আমেরিকায় কয়েক বছর লেগে রইলেন মুনাফ। কিন্তু সাহেবদের দেশে কেন যেন মন বসল না তাঁর।সব রকম প্রলোভন ছাপিয়ে মায়ের হাতের রান্না করা খাবার আর বন্ধুদের সঙ্গে দোকানে বসে চা-শিঙাড়া খাওয়ার সময়টার কথা ভেবে থাকা আর হল না ওখানে।

নিজের বাড়ির খাবারকে মিস করেন অনেকেই। সেই ভাবনা থেকেই মুনাফ তাঁর রেস্তোরাঁর ট্যাগলাইন দিয়ে ফেললেন— ‘ঘর কা খানা’। যেমন ভাবা তেমন কাজ। ২০১৫ সালে তিনি ‘দ্য বোহরি কিচেন’ নামে একটি রেস্তোরাঁ খুলে ফেললেন কাপাডিয়া। মাত্র দু’বছরের মধ্যে মুনাফের ‘দ্য বোহরি কিচেন’ হয়ে উঠল মুম্বইয়ের অন্যতম আলোচিত ফুড ডেস্টিনেশন। বছরে তাঁর রেস্তোরাঁর টার্ন ওভার ৫০ লক্ষ টাকা। এই শিঙাড়া বিক্রির ব্যবসা শুরু করার জন্যই টেক জায়ান্ট গুগলের আরামদায়ক চাকরি ছেড়েছিলেন মু্ম্বইয়ের বাসিন্দা ২৯ বছরের মুনাফ।

তাঁর ইচ্ছে কয়েক বছরের মধ্যে মুনাফার অঙ্কটাকে বছরে পঞ্চাশ লক্ষ থেকে পাঁচ কোটিতে নিয়ে যাবেন তিনি। মুনাফ ‘টাইমস নাউ’কে বলেন, ‘‘সাফল্যের জন্য ঝুঁকি নিতে হয়।’’ এখানেই থামছেন না মুনাফ। জার্নিটা সবে শুরু। আরও এগিয়ে যেতে চান অনেক অনেক দূর পর্যন্ত।  তাঁর ‘বোহরি কিচেন’কে ছড়িয়ে দিতে চান ভারতের সীমানা পেরিয়ে দেশের বাইরেও। ফোর্বস ম্যাগাজিন সম্প্রতি ‘আন্ডার থার্টি’ তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করেছে মুনাফ কাপাডিয়ার নাম।

প্রথম পাতা

গুগল OCR ব্যবহার পদ্ধতি

গুগল OCR বিস্ময়কর এক প্রযুক্তি। যারা ইতমধ্যেই এই প্রযুক্তি ব্যবহার করেছেন তাদেরকে নতুন করে বলার কিছু নেই, কিন্তু অনেকেই আছেন যারা এখনও এই বিস্ময়কর প্রযুক্তি সম্পর্কে এখনও জানেন না। তাদের জন্যেই আজকের টিউটোরিয়াল। প্রথমেই জেনে নেওয়া যাক OCR কি? 24 more words

বাংলা কম্পিউটিং

গুগল ট্রান্সলেট দেখা যাবে নতুন রুপে

এক ভাষা থেকে আরেক ভাষায় অনুবাদ করতে গুগল ট্রান্সলেটরের সাহায্য নেওয়া যায়।এই অ্যাপকে আরও উন্নত করা হচ্ছে। এখন থেকে পুরো বাক্য শুদ্ধ অনুবাদ করতে পারবে গুগল ট্রান্সলেট।

গুগলের এক ব্লগ পোস্টে এ ঘোষণা দেয়া হয়েছে। তাতে বলা হয়, বড় অনুবাদও প্রাসঙ্গিক করবে গুগল। মানুষ যেভাবে ব্যাকরণ ব্যবহার করে কথা বলে, সেভাবে গুছিয়ে বাক্য গঠন করবে অ্যাপটি।এতে ব্যবহৃত হবে নিউরাল মেশিন ট্রান্সলেশন।

নিউরাল মেশিন পদ্ধতি হচ্ছে মানুষের ভাষা কম্পিউটারকে শেখানোর পদ্ধতি।গত বছরের সেপ্টেম্বরে গুগল এ-সংক্রান্ত গবেষণার কথা জানায়।

গত বছরের নভেম্বর থেকে পদ্ধতিটি গুগল ট্রান্সলেটরে যুক্ত করা হয়েছে।ইংরেজি, ফ্রেঞ্চ, জার্মান, স্প্যানিশ ও চায়নিজ ভাষা ট্রান্সলেটে এ পদ্ধতি ব্যবহৃত হচ্ছে।অন্যান্য ভাষার ক্ষেত্রেও এর প্রয়োগ হবে।

খবর